Mone Pade By Gopa Benerjee

*মনে পড়ে*

 

আজ লিখতে বসেছি আমাদের সবার টেক্সটাইল  এলামনি এসোসিএসান নিয়ে।

কোথা থেকে সুরু  করবো  বুঝতে পারছিনা। যখন বিয়ে হয়ে আমেদাবাদে প্রথম এলাম সব আত্মীয় আর বন্ধুদের ছেড়ে–  এখানে  সত্যিই একটা বড়  পরিবারে এসে যুক্ত হলাম।যেদিন  বিকেলে এসে পৌছলাম সেদিনেই ছিল কান্কারিয়া পিকনিক গারডেন এ বিজয়া সন্মেলনি–প্রবালদা বলে পাঠিয়েছিলেন আমরা ক্লান্ত থাকলেও যেন  অবশ্যই যাই। (তখন কেউ নতুন বিয়ে করে এলে অনেকেই আমেদাবাদ  station এ আসতো নতুন বৌকে রিসিভ করতে)।গেলাম ওখানে — রাত্রে ফেরার পথে গেল scooter খারাপ হয়ে– কমল বাগচীদার ভাড়া  বাড়ির গেট খুলে (ওনাকে না জানিয়েই)scooter টা  রেখে দিব্যেন্দুদের আলাদা আলাদা scooter এ চেপে মাঝরাত্রে আমাদের বাড়ি  ফেরা।তখনই বুঝলাম এটা সত্যি আমাদের একটা  খুব বড়  পরিবার।

তারপর এখনতো নিজের আত্মিয়দের সাথে যতটা না মন খুলে কথা বলতে পারি — তার থেকেও বেশি আপন  আমাদের  বড় বউদিরা আর অন্য বন্ধুরা।এতে অবশ্যই  বড় বড়  বউদিদের কৃতিত্ব অনেক–ওরা আমাদের এমন করে কাছে টেনে নিয়েছেন–বিপদের সময়ে এগিয়ে এসে দুহাতে আগলে রেখেছেন।

এবার বলি দিপাবলীতে বেড়াতে  যাবার  কথা–প্রথমবার গেছিলাম জয়পুর–১৯৮৮ এ—ট্রেনের একটা পুরো কোচ রিসার্ভ  করে–মেয়েরা আর বাচ্চারা বাংক এ আর ছেলেরা  decorator এর ভাড়া  করা সত্রঞ্চি মাটিতে পেতে।

প্রবালদার ছেলে মেয়ে  (দোলোন,ছোটন)  , সুশান্তদার ছেলে বাপ্তু,কমল বাগচীদার মেয়েরা- বাবাই,তাতাই– আরো    বাচ্চারা আর আমরা অনেকে প্রায় সারারাত ট্রেনে আন্তাক্সারী খেলা — হঠাত করে আবুদা একটা কম্বল দিয়ে বিরাট  ঘোমটা টেনে এসে বলে — কি দিয়ে হচ্চে– ‘চ’ তো–“চ্যেং ধরে ব্যেং আর ব্যেং ধরে চ্যেং– ঘোমটা  মাথায় দিয়া ও শিব নাচো-ও-ও-ও” — এই গানের সাথে কি নাচ।

শুনেছি  এর আগে দিপাবলীতে প্রত্যেকবার বেড়াতে  যাওয়া হত না— কিন্তু এরপর থেকে প্রত্যেকবার ই নিয়মিত যাওয়া হয়।

ওখানে গিয়ে আমরা বউরা একসাথে আর ছেলেরা ছেলেরা অন্য ঘরে থাকা–সারা রাত্রি আড্ডা, একসাথে বেরাতে যাওয়া, কেনাকাটা। সুভাশীষ প্রধান, অরুন,দিব্যেন্দু,তাপস, সুরাশীষ কারো বিয়ে হয়নি তখনো — কারো কারো বিয়ে ঠিক  হয়েছে –হবু বউদের জন্য আমরা বউদিরা ছোটো

খাটো উপহার পছন্দ  করে দিলাম।

এখনো  ঐ তিনদিনের আড্ডার লোভে আমরা দিনগুনি— কবে  বেরাতে যাব  আর সারারাত  আড্ডা  মারব,গল্প করব।